Home » কলাম » আওয়ামীলীগ-বিএনপির বাইরে অন্য কেউ কি ক্ষমতায় বসতে যাচ্ছে ?

আওয়ামীলীগ-বিএনপির বাইরে অন্য কেউ কি ক্ষমতায় বসতে যাচ্ছে ?

চলমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে এবং সদ্য ঘটে যাওয়া মিশরের তাহরীর স্কোয়ারের আন্দোলনের মুখে ক্ষমতাসীন মুসলিম ব্রাদারহুডের প্রেসিডেন্ট মোর্সিকে ক্ষমতাচ্যুতির ঘটনার প্রেক্ষিতে কেন যেন এক কাকতালীয়, বায়বীয়, অথচ শক্তিশালী এক কলকাঠি নাড়ার গন্ধ পাওয়া যাচ্ছে। কোথায় যেন একটা মিল খোজার নেপথ্যের খেলার ছক আবর্তিত হওয়ার মতো অবস্থা তৈরি হতে চলেছে বলে মনে হচ্ছে।

যথেষ্ট সন্দেহ ও জিঘাংসা এই কারণে, পেছনের ইতিহাস আর আজকের বাস্তবতা, যেমন করে বেনজীর ভূট্রোকে হটিয়ে সামরিক উর্দি পড়া সেনাশাসনের আড়ালে বেসামরিক সরকারের লেবাসের সাথে সেদিনকার বাংলাদেশের সামরিক সরকারের বেসামরিকীকরণের আলামতকে অনেকেই তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য সহকারে উড়িয়ে দিয়েছিলেন, অথচ বাস্তবে কিন্তু বেনজীর সরকার পতনের সাথে সেদিনকার সরকারের অনেক মিল ছিলো এবং উৎসাহিত হয়েছিলো, আজকের বহু বছর পরে যোজন-যোজন দূরে মিশরের মোর্সি সরকারের পতনের সাথে কেন জানি বাংলাদেশের পর্দার অন্তরালের খেলার রাজনীতির সেই দাবার চালের কথাই বার বার মনে পড়ছে।বিশেষ করে এই কদিনের রাজনৈতিক ঘটনা প্রবাহে তাই মনে হচ্ছে।

মনে হচ্ছে এই কারণে যে, দেশে যেভাবে আওয়ামীলীগ সরকারের সকল দুর্গের একের পর এক পতন আর ভয়াবহ ভরাডুবি হচ্ছে, গাজীপুরের আওয়ামীলীগের দুর্গের পতনের পর আওয়ামীলীগ শিবিরে যেভাবে হতাশা আর ভয়ংকর আগামী নির্বাচনের অশনি সংকেত শুরু হয়েছে, তাতে মনে হচ্ছে, আওয়ামীলীগ আদৌ আর আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে দিবেনা। আওয়ামীলীগ জেনে গেছে, তাদের জনপ্রিয়তা এখন একেবারে শূন্যের কোঠায়। আর এই অবস্থায় নির্বাচন দিলে ভরাডুবি ছাড়া আর কোন উপায় নেই। আবার বিরোধীদের দাবী না মেনে কিংবা কোন রূপ সমঝোতা ছাড়া নির্বাচন দেশে ও বিদেশে যেমন গ্রহণযোগ্যতা পাবেনা, একইভাবে ৯৬ র স্টাইলে নির্বাচনের আদৌ সেই পরিবেশ দেশে ও প্রশাসনিক ও রাজনৈতিকভাবে বিদ্যমানও নেই।একইভাবে সময়ের স্বল্পতার দরুন এমন কোন জাদুমন্ত্রও নেই যে আওয়ামীলীগ রাতারাতি ঘুরে দাড়াতে পারে।এই অবস্থায় একতরফা নির্বাচন হলে আর বিরোধীদলের সম্মিলিত বয়কটের ফলে আওয়ামীলীগের অনেক নেতার এলাকায় বসবাসই কষ্টকর হয়ে যাবে।আবার এইরকম একরোখা আর একচোখা নীতি নিয়ে চললে, নির্বাচনের যে কয়মাস হাতে রয়েছে, তাতে আওয়ামীলীগের প্রায় সকল এমপির এলাকায় যাওয়াই কঠিন হয়ে যাবে। ইতিমধ্যে অনেকে এমপি এবং মন্ত্রী নিজ দলীয় লোকদের দ্বারাই অবরুদ্ধ হওয়ার সংবাদ পত্র-পত্রিকায় এসেছে।

আতাতের প্রশ্ন আসছে এই কারণে, মার্কিন ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রদূতের সহায়তায় শেখ হাসিনার উপদেষ্টা গওহর রিজভী, জামায়াতের ব্যারিষ্টার আব্দুর রাজ্জাক ও অন্যদের উপস্থিতে গোপণ বৈঠক হয়েছে। পত্র-পত্রিকায় এই খবর এসেছে। কোন পক্ষই এই সংবাদের প্রতিবাদ করেনি। এদিকে গোলাম আযমের রায় নিয়ে শুরু হয়েছে দেশে উত্থাল এক অবস্থা। জনমনে প্রশ্ন একই অপরাধে একজনের ফাসী, আর সব কটা অপরাধ প্রমাণিত হওয়ার পরেও লঘু শাস্তি ৯০ বছরের জেল।অপরদিকে একজনের অনুপস্থিতে ফাঁসী এবং অপরজনের মৃত্যুদন্ড- কোথায় যেন তলে তলে কিছু একটা ঘটে গেছে।

অপরদিকে আওয়ামীলীগের দুঃশাসন আর প্রতিশ্রুতি ভঙ্গের কারণে জনগণ তাদের ক্ষোভ এবং হতাশা আওয়ামীলীগের বিরুদ্ধে ভোট দিয়ে যেমন আওয়ামীলীগকে প্রত্যাখ্যানের সূচনা করেছে, একইভাবে জনতার ম্যান্ডেট নিয়ে একই বিরোধী জোট যাদের অপশাসনের বিরুদ্ধে এই জনগণ পাঁচ বছর আগে আওয়ামীলীগকে ক্ষমতায় বসিয়েছিলো, সেই একই জোট আবার ক্ষমতায় আসীন হতে চলেছে, বিকল্প কোন জোট বা শক্তি না থাকার সুবাধে। তৃতীয় শক্তি বা তৃতীয় জোটের কথা যারা বলেন, তাদের অভিমত এমন হলেও শুধুই কি এই তৃতীয় রাজনৈতিক শক্তির অনুপস্থিতিতে বিএনপির নেতৃত্বাধীন জোটকে জনগণ ভোট দিয়েছে- এমন ঢালাও সমীকরণ কতোটুকু যুক্তিসঙ্গত সেটাও অবশ্যই আলোচনার দাবি রাখে। তবে চুলচেরা বিশ্লেষণে যাওয়ার আগে মোটা দাগে যেটা বলা যায়, বাংলাদেশে মূলত এখন পর্যন্ত আওয়ামীলীগ এবং বিএনপি ও তাদের নেতৃত্বাধীন দুই জোটের বাইরে বিকল্প কোন শক্তি অথবা শেখ হাসিনা ও খালেদা জিয়ার বাইরে জনগণ এখনো নতুন কোন চিন্তা করার মতো সেই অবস্থানে পৌঁছেনি। আমরা যে যতভাবেই বিশ্লেষণ করিনা কেন, যত তথ্য-উপাত্ত ব্যবহার করে দেখিনা কেন, বড় হরফে শেষ পর্যন্ত একই সারমর্ম দুই নেত্রীর বাইরে এখনো দেশ ও জনগণ প্রস্তুত নয়। কারণ তথ্য, তত্ব আর টক শোর বাইরে বাস্তবে এবং মাঠের রাজনীতির চিত্র কিন্তু ভিন্ন। কেননা এই দুই দলই ৬৮ হাজার বাংলাদেশের প্রতিটি গ্রাম, উপজেলা, থানা, ওয়ার্ডে বেশ শক্তভাবেই গেঁথে আছে। আর আছে বলেই ৬৮ হাজার গ্রামকে বাইরে রেখেতো আর শুধু মাত্র শহর কেন্দ্রিক রাজনীতি দিয়ে কিংবা শহর কেন্দ্রিক টক শো রাজনীতির নিয়ামক শক্তি হতে পারেনি বা পারার মতো সেই অবস্থানে পৌঁছেনি। যে কারণে এখানে এখনো তাহরীর স্কোয়ার কিংবা তিয়েনমান স্কোয়ারের মতো বিক্ষোভের স্থায়িত্ব সম্ভব হয়নি এখনো। যদিও শাহবাগ কিংবা ভিন্ন আঙ্গিকে মতিঝিলের শাপলা চত্বর করার চেষ্টা পরিলক্ষিত হয়েছিলো। কিন্তু স্থায়িত্বের ব্যারোমিটারের মাত্রা এখনো অনেক প্রশ্নের উত্তর অনুচ্চারিত এবং অনাবিষ্কৃত।

আর এই সুযোগটাই পর্দার আড়ালের কুশীলব, যারা রাজনীতির মঞ্চ নিয়ন্ত্রণ করেন, বিভিন্ন ছক বেধে দেন, খেলার মাঠের ফাউল কিক আর রেফারী বিহীন খেলার সূচনা করে দেন, বিভিন্ন লবিষ্ট আর বিশ্ব মানচিত্রের স্বার্থ-সংশ্লিষ্ট মহল আর নিয়ামক শক্তির আশীর্বাদ নিয়ে ধীরে ধীরে সেই পর্দার আড়ালের খেলা মাঠের রাজনীতিতে আস্তে-আস্তে, কখনো কখনো সরবে, আবার কখনো নির্বাচনী ডামাডোলে ছড়িয়ে দিয়ে অংক কষতে থাকেন।গত কয়েক সপ্তাহের রাজনীতির অংক কষতে গিয়ে কেন জানি মনে হচ্ছে, সকলের অগোচরে অথচ বেশ জানান দিয়ে কোন এক শক্তিকে মাঠে নামিয়ে গ্রামীণের ইস্যুকে সামনে নিয়ে এসে রাজনীতির সেই খেলার ছকে সকল কিছুই পরিচালিত হচ্ছে। আর সেই ভয় থেকেই কেন জানি মনে হচ্ছে ১৮ দল ও বিএনপি নিজেদের গোলের সেই স্বাদ ও ফল নিজেদের ঘরে কি নিতে পারবে ? নাকি অন্য কোন উপায়ে দেশ অন্য এক শক্তির হাতে খোদ আওয়ামীলীগ নিজেদের নিরাপদ এক্সিট রুটের সুবিধার্থে সমর্পণের আগাম সব ড্রেস রিহার্সাল ভালোমতোই সম্পন্ন করে নিয়ে এসেছে। কারণ আওয়ামীলীগ নিজেদের নৌকা যখন ডুবে যেতে দেখছে, তখনো ডুবন্ত নৌকাকে তুলে কিনারে নিয়ে আসার চেষ্টা না করে বরং নৌকাকে যখন আরো গভীরে ডুবে যেতে দেয়, তখনি সন্দেহের দানা আরো বড় হয়ে দেখা দেয়। কথায় বলে, সন্দেহ, সন্দেহই। আর আদালত পাড়ার জজ, আর বিজ্ঞ উকিলেরা বলেন, সন্দেহের সিঁড়ি বেয়েই আসে প্রমাণ।বাংলাদেশের রাজনীতিতে এখন এতো সন্দেহ আর অবিশ্বাস যে, ক্ষমতাসীন দল এবং তাদের মিত্র ও বিরোধী জোট কেউ কাউকেই আর বিশ্বাসের ব্যারোমিটারে একই জায়গায় রাখতে অভ্যস্ত নন।এখন কেবল সন্দেহ আর অবিশ্বাস। আর এই অবিশ্বাসের মাত্রা আরো বাড়িয়ে দেয়, গাজীপুরে যখন নৌকা ডুবে গিয়ে একাকার, তখনো প্রধানমন্ত্রী লন্ডনে বলেন, নির্বাচন ব্রিটেনের আদলে গণতান্ত্রিক সরকারের অধীনে হবে। বিরোধীদের গণতান্ত্রিক ভাবে এতো বিশাল ব্যবধানের জয়ও যেন আওয়ামীলীগের একগুঁয়েমি ও একচোখা নীতিকে সামান্যও নড়াতে পারেনি। এটাতো ভয়ংকর এক সংকেত। এ যেন রোম যখন পুড়ছিলো, নীরু তখন বাঁশী বাজাচ্ছিলো`র মতো অবস্থা। তাহলে কি আওয়ামীলীগ হাইকমান্ড ভেবে চিন্তেই পর্দার অন্তরালের রাজনৈতিক সেই মোর্সি অপসারণের ভয়াবহ খেলার সাথে নিজেদেরকে গড্ডালিকা প্রবাহের মতো গা ভাসিয়ে দিয়ে চলেছে, যাতে জাতও থাকে, মানও থাকে, আমিও বাঁচি, চোর-লুটেরাদেরকেও বাচাই, তবুও তোমাকে ক্ষমতায় আসতে দেবোনা- এমন আহাম্মকি ইগোতো দেশ ও জনগণের জন্য মঙ্গলজনক নয়। আমরা কি তাহলে মিসরের ঘটনাবলীর দিকে দ্রুত ধাবমান হচ্ছি ? আল্লাহই জানেন আমাদের নেতৃবৃন্দের কবে যে বোধোদয় হবে? যত তাড়াতাড়ি হয়, ততোই মঙ্গল। নতুবা আরো যে কতো ভয়াবহ অবস্থা আমাদের সামনে আসবে, সময়ই তা বলে দেবে।

Add a Comment

Your email address will not be published.