Home » Featured » ৫৮% ব্রিটিশ জনগন মনে করেন ডেভিড ক্যামেরনের চলে যাওয়া উচিৎ

৫৮% ব্রিটিশ জনগন মনে করেন ডেভিড ক্যামেরনের চলে যাওয়া উচিৎ

সৈয়দ শাহ সেলিম আহমেদ-লন্ডন থেকে

আগামী ২৬ শে জুন ব্রিটেনে গণভোট অনুষ্ঠিত হবে। উদ্দেশ্য ব্রিটেন ইউরোপীয় ইউনিয়নে থাকবে কি থাকবেনা- এ নিয়ে ব্রিটেনের জনগন মতামত গনোভোটের মাধ্যমে প্রয়োগ করার দিন। এই গণভোট নিয়ে ব্রিটিশরা এখন মূলত দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়েছেন। সেই বিভক্তি আর ব্রিটিশ রাজনীতির ঢেউ ব্রিটেনের বাংলাদেশী কমিউনিটি সহ কম বেশী সকল কমিউনিটিই এই ফিভারে আক্রান্ত। এমনকি মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামাও এই বাকযুদ্ধে জড়িয়ে পড়েছেন।ব্রিটেনের কনজারভেটিভ পার্টি ও লেবার পার্টির মধ্যেও বিভক্তি এখন প্রকট ও প্রকাশ্যে। প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন, চ্যান্সেলর ওসবর্ন আর সাবেক লন্ডন মেয়র বরিস জনসন ও মাইকেল গোভ এখন দুই মেরুতে অবস্থান করছেন। এক পক্ষ ইন ক্যাম্পেইন করছেনতো, অপরপক্ষ আউট ক্যাম্পেইন চালিয়ে যাচ্ছেন।গত সপ্তাহে নানা জনমত জরিপে ইন ক্যাম্পেইন যেখানে বেশ এগিয়েছিলো, অনেক ব্যবধান ছিলো, প্রায় ৮-১১% এর মতো, ঠিক সেই জায়গায় এই সপ্তাহে এসে আউটট ক্যাম্পেইন এখন ইন ক্যাম্পেইন থেকে মাত্র তিন পার্সেন্ট পিছিয়ে আছে। তারপরেও চলছে অনেক নাটকীয়তা। এমনি অবস্থায় ইভনিং ষ্ট্যান্ডার্ড-বিএমজি এক জনমত জরিপ পরিচালনা করে। এতে ৫৮% ব্রিটিশ মনে করেন রেফেরেন্ডামে হেরে গেলে ডেভিড ক্যামেরনকে বিদায় নিতে হবে। বিএমজি রিসার্চ সার্ভেতে আজ এমন ফলাফলই প্রকাশিত হয়েছে। ইভনিং ষ্ট্যান্ডার্ডেও সেই রিপোর্ট ফলাও করে প্রকাশ করেছে। তবে বিএমজির রিসার্চে বরিস জনসনকেই ব্রিটেনের কনজারভেটিভ পার্টির জনপ্রিয় লিডার হিসেবে  বেছে নিয়েছেন অধিকাংশ জনগন।

 

৩৯% ব্রিটিশ জনগন ক্যামেরনের ইন ক্যাম্পেইনকে প্রত্যাখ্যান করে বলেছেন, ঐতিহাসিক এই ভোটে হেরে গেলে ক্যামেরনকে ইমিডিয়েটলি পদত্যাগ করা উচিত।

আর ১৯% জানিয়েছেন, এক বছরের মাথায় ডেভিড ক্যামেরনকে চলে যেতে হবে।

 

তবে বিএমজির এই জরিপে ক্যামেরনের বিদায় নিয়েও বিভক্তি পরিলক্ষিত হয়েছে। এর মধ্যে তৃতীয় একটি জনমত এসেছে, আর তাহলো ১০ জনের একজন মনে করেন ডেভিড ক্যামেরনকে আরো অন্তত দুই বছর নাম্বার টেন(১০) এ রাষ্ট্র পরিচালনার জন্য থাকা উচিত।

 

কনজারভেটিভ ব্যাক বেঞ্চারদের মধ্যেও বিদ্রোহের সুর বাজছে, উল্লেখযোগ্যদের মধ্যে রয়েছেন সিনিয়র কনজারভেটিভ স্যার বিল ক্যাশ, নাদাইন ডোরিস, অ্যান্ড্রো ব্রিজেন, যারা হুমকীও দিয়েছেন।

 

আর মজার ব্যাপার হলও কনজারভেটিভ ভোটারদের মধ্যেও ডেভিড ক্যামেরনের বিদায় নিয়ে মতবিরোধ দেখা গেছে জরিপে। ৫০% কনজারভেটিভ ভোটার মনে করেন ক্যামেরনকে ২০২০ সাল পর্যন্ত ডাউনিং ষ্ট্রীটে থাকা উচিত, আর ২০% মনে করেন ২০১৮ সাল পর্যন্ত থাকা উচিত।

 

অন্যদিকে ৭৪% লেবার ভোটারদের দ্বারা সমর্থিত ৭৮% ইউকিপ সমর্থকরা মনে করেন এখনি ডেভিড ক্যামেরনকে রিজাইন করা উচিত

 

আরেকটা ইন্টারেস্টিং বিষয় বিএমজির জরিপে উঠে এসেছে, প্রশ্ন ছিলো যদি ক্যামেরন গণভোটে হেরে যান অথবা গণভোটের পর পদত্যাগে বাধ্য হন, তাহলে কাকে তারা পছন্দ করেন বা ইমিডিয়েট রিপ্লেসম্যান্ট হিসেবে প্রিফার করেন- এর উত্তরে ৩৫% জনসনের নাম বলেছেন।আর দ্বিতীয় পছন্দের তালিকায় রয়েছেন হোম সেক্রেটারি থেরেসা মে। উল্লেখ্য বিএমজি ১,৬৩৮ জনের মধ্যে এই জরিপ পরিচালিত করেছে, যাদের বয়স ১৯ থেকে ২৫ এর মধ্যে।

 

এখন দেখার বিষয় ২৩শে জুনের গণভোট পরবর্তী রাজনীতিতে ডেভিড ক্যামেরনের রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ কোণদিকে মোড় নেয়- সেটা দেখার জন্য আমাদেরকে আরো কিছুদিন অপেক্ষা করতে হবে।

০১/০৬/২০১৬

 

Please follow and like us:
One Comment

Add a Comment

Your email address will not be published.

Follow by Email
YouTube
Pinterest
LinkedIn
Share
Instagram
error: Content is protected !!