Home » কলাম » মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এবার অন্তত কিছু সৎ, আদর্শ, আর উদ্যমীদের মন্ত্রী পরিষদে ঠাই দিন

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এবার অন্তত কিছু সৎ, আদর্শ, আর উদ্যমীদের মন্ত্রী পরিষদে ঠাই দিন

সৈয়দ শাহ সেলিম আহমেদ

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, অনেক নাটকীয়তার পর আপনার রাজনৈতিক কুশলী চালে আপনি ক্ষমতার পাদপ্রদীপ থেকে বিরোধীদের ধরাশায়ী করে নিজের নিরঙ্কুশ ক্ষমতা পাকাপোক্ত করেছেন। সেটা আপনার রাজনৈতিক প্রজ্ঞা, দূরদর্শিতা কিংবা ঝানু রাজনীতিবিদের পরিচয় কিনা, তা বলার এখনো সময় আসেনি। সেজন্য আমাদেরকে আরো কিছুটা সময় অপেক্ষা করতে হবে আপনার দ্বিতীয় টার্মের রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক এবং প্রশাসনিক অবস্থা ও দক্ষতা দেখার জন্য। তবে এতোটুকু বলা যায়,নিঃসন্দেহে আপনি এযাত্রা দক্ষ নাবিকের ন্যায় সমুদ্রের উত্থাল জলরাশি ডিঙ্গিয়ে তরী কিনারে ভিড়াতে সক্ষম হয়েছেন।

এই মুহূর্তে সবচাইতে জরুরী এবং আশু যে দাবী আর তাহলো-

দয়া করে দেশের উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চলে যে ভয়াবহ সংখ্যালঘুদের উপর হামলা ও তাদের বাড়ী ঘর জ্বালিয়ে দেয়া হয়েছে, ভিটেমাটি ছাড়া করা হয়েছে- বার বার যাতে আর এমন অবস্থার মুখোমুখি বাংলাদেশ না হয়, দয়া করে জাতির বিবেক ও সরকার প্রধান হিসেবে আপনি কঠোর হস্তে তা দমন করে প্রকৃত অপরাধীদের দ্রুত আইনের আওতায় নিয়ে এসে সংখ্যালঘু ভাই বোনদের নিরাপত্তা, আস্থা ও বিশ্বাস পূণঃস্থাপন করুন প্লিজ। অপরাধী যেই হউক, সে আওয়ামীলীগ, বিএনপি, জামায়াত, জাতীয় পার্টি, জাসদ-যেই হউক তাদেরকে আইনের আওতায় নিয়ে এসে সারা জাতি ও অপরাধীদের অন্তরাত্মায় ভয়াবহ কম্পন ও দৃষ্টান্ত স্থাপন করুন- যাতে দ্বিতীয়বার এমন ভয়াবহ হিংস্রতার বিষয়ে চিন্তা করার আগে অপরাধী ভয়ে শিউড়ে উঠে।

০২) সারা দেশের আইন শৃঙ্খলা এবং ব্যবসা বাণিজ্য, স্কুল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও জনজীবনে নিরাপত্তা ও আস্থা পূণঃস্থাপন করুন দ্রুততম সময়ের মধ্যে।

০৩) সকল ধরনের বোমাবাজ, সন্ত্রাসী ও তাদের গড ফাদারদের(সরকারী ও বিরোধী) বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করুন প্লিজ।

সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ যে সিগন্যাল আপনি জাতিকে দিতে পারেন, আর তাহলো, আপনার মন্ত্রী পরিষদে দয়াকরে এমন কাউকে স্থান দিবেননা, যারা ইতিমধ্যেই নানা কারণে চিহ্নিত দুর্নীতিবাজ এবং সন্ত্রাসীদের গড ফাদার।

এবার অন্তত বেছে বেছে সৎ, আদর্শ, উদ্যমী, রাজনৈতিকভাবে অত্যন্ত ডেডিকেটেড এবং শিক্ষিত ও উন্নত রুচির অধিকারী একই সাথে দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ পরীক্ষিত রাজনৈতিক নেতা ও কর্মীদের মন্ত্রীপরিষদে ঠাই দিন। অসৎ, দুর্নীতির বরপুত্র আর মহাগুরুদের সযত্নে এড়িয়ে চলুন। তাহলে এতো কিছুর পরেও দেশ ও জাতির জনগণ কিছুটা হলেও ভাবতে শুরু করবে, হাসিনার সরকার সব কিছুর উর্ধ্বে উঠে দুর্নীতিবাজদের পুরস্কৃত করেনি। আর যদি তাই করেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এমন করে আপনি ও আপনার সরকার ইমেজ সংকট থেকে শুধু বেরিয়ে আসা নয়, সকল দিক দিয়েই আপনি ও আপনার সরকার উতরে যাবে। এবারতো আপনার সরকার সীমাহীন সংখ্যাগরিষ্ঠ। তাই ভয় কিসের হে কাণ্ডারি-দেশ ও জনগণের স্বার্থে এবং আগামীর সুন্দরের স্বার্থে কিছু একটা দৃষ্টান্ত স্থাপন করুন, যাতে জনগণ আশ্বস্ত হতে পারে। কারণ জনগণকে আশ্বস্ত করা ছাড়া সরকার সামনের দিকে এগিয়ে যেতে পারবেনা, যদিও সকল বাধা বিপত্তির পাহাড় ডিঙ্গিয়ে আপনি নতুন সরকারের শপথ নিতে যাচ্ছেন।

মনে রাখবেন আপনার সরকারের ভালো অর্জন, ভালো দৃষ্টান্ত তখনি দৃশ্যমান হবে, যখন আপনার জাহাজের নাবিক আর সহযোগীরা হবে আদর্শ ও উন্নত এবং কর্মে উদ্দীপ্ত এবং দুর্নীতির বিরুদ্ধে কাজে ও কর্মে সোচ্চার ( যেমন নাহিদ ও মুহিত- এতো কিছুর পরেও এই দুজন দুর্নীতি মুক্ত হিসেবে সকল মহলেই প্রশংসিত )

৯ জানুয়ারি ২০১৪ ।

Please follow and like us:

Add a Comment

Your email address will not be published.

Follow by Email
YouTube
Pinterest
LinkedIn
Share
Instagram
error: Content is protected !!