Home » কলাম » লন্ডনে পাওয়া বাংলাদেশের পরিস্থিতি নিয়ে নতুন হার্ড তথ্য

লন্ডনে পাওয়া বাংলাদেশের পরিস্থিতি নিয়ে নতুন হার্ড তথ্য

চলমান রাজনৈতিক সংকট নিয়ে দেশে-বিদেশের সকল অংশ ও ষ্টেক হোল্ডাররাই এখন নানাভাবে সক্রিয়।দফায় দফায় বৈঠক আর তথ্যের আদান প্রদান প্রতিনিয়ত হচ্ছে। সবাই উদগ্রীব কি হচ্ছে দেশে?

লন্ডনের সাংবাদিক, সাবেক সেনা কর্মকর্তা, আর সাবেক সচিবদের মাধ্যমে বর্তমানের চলমান নতুন হার্ড কিছু তথ্য এখানে শেয়ার করছি।

সূত্র উল্লেখ করেছে, আনন্দ বাজারের বাংলাদেশ নিয়ে তথ্য উপস্থাপনকারী সুবীর ভৌমিক এক সময় বিবিসির ইস্টার্ন প্রতিনিধি হয়ে কাজ করতেন। এখন তিনি আর বিবিসির সাথে সংযুক্ত নন। বর্তমানে তিনি বিডিনিউজ এর কোলকাতা প্রতিনিধি হয়ে কাজ করছেন। সুবীর ভৌমিকের বর্তমান কাজই হলো, বাংলাদেশ নিয়ে নয়া দিল্লী কি ভাবছে, কেমন সরকার চাচ্ছে, আইএসআই এর বিপরীতে র-এর ইন্টেলিজেন্স এর ভূমিকা, বাংলাদেশ নিয়ে ভারত-মার্কিন-চীনের কূটনীতি কৌশল হাইলাইট করে মিডিয়ায় তুলে ধরাই হলো সুবীর ভৌমিকের কাজ। আর তিনি তা ভালোমতো তুলে ধরতেই সচেষ্ট। বলা যায়, নয়া দিল্লীর মিডিয়া উইং বা ফ্রন্ট এখন সুবীর ভৌমিক।

সূত্র আরো জানিয়েছে, সাঁথিয়ায় আজকে যে হত্যাকাণ্ড ঘটে গেলো, বিএনপি, জামায়াত এব্যাপারে সঠিকভাবে কনসার্ণ না হলে, আদতেই সেটা বিএনপি, জামায়াতের ঘাড়ে এসে পড়বে এবং তাদের ধারণা, অচিরেই এনিয়ে বাংলাদেশে রায়ট হয়ে যেতে পারে। তবে তারা বলছেন, সেটা এখন যদি না হয়, তবে নির্বাচনের পর পরই রাজনৈতিক মোটিভেশন থেকেই রায়ট ছড়িয়ে পড়বে। বিএনপি জামায়াত সজাগ না হলে এর খেসারত দিতে হতে পারে।

সূত্র নিশ্চিত করেছে, নয়া দিল্লী ও পেন্টাগন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে এই ম্যাসেজই দিয়েছে, রাজনীতি থেকে এই মুহূর্তে নিরাপদ দূরত্বে অবস্থান করার জন্য। চলমান রাজনৈতিক সংকট নিয়ে সেনাবাহিনী যাতে নাক না গলায়, নয়া দিল্লী ও পেন্টাগন সে সতর্ক সুনামি জারি করে রেখেছে। অবস্থা যাই হউক, এই সুনামি সংকেত জারি থাকলে, বাংলাদেশের রাজনীতিতে সেনাবাহিনীর হস্তক্ষেপ কোনভাবেই হবেনা। নয়া দিল্লী আমেরিকার মাধ্যমে সেনাবাহিনীর হস্তক্ষেপ নিয়ন্ত্রণে নিয়ে এসেছে।

এই সূত্র, লন্ডনে অবস্থানরত বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে ঘিরে কতিপয় অর্বাচীন, অপাংক্তেয়, নন-প্রফেশনাল, অদক্ষ টেকনোক্র্যাট-যারা ঘিরে রেখেছে, তারা নিজেদের জ্ঞাতে এবং অজ্ঞাতে তারেক রহমানের নতুন ধারার রাজনীতির যে এক ইমেজ গড়ে উঠতে যাচ্ছে, তাকে সমূলে ধ্বংস করে দিতেছে। যে ব্রিক তারেক রহমান গড়ে তুলতে যাচ্ছেন, বা তুলেছেন, এই সব অপ্রয়োজনীয় নন-প্রফেশনাল ও অরাজনৈতিক লোকগুলো সেই ব্রিক স্টোন ভেঙ্গে দিতেছে, যা বিএনপি ও তারেক রহমানের রাজনীতির জন্য এক অশনি সংকেত। তারেক রহমান কি এ ব্যাপারে সজাগ আছেন?

সর্বশেষ তথ্য, সরকার সেনাবাহিনী দিয়েই আসন্ন নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্নের ব্যবস্থা করছে। সিইসি আজ প্রকাশ্যে সেনাবাহিনীর দ্বারা সুষ্ঠুভাবে নির্বাচনের কথা নতুন করে বললেন, অথচ এর আগে তিনি এমনটা কখনো বলেননি।

Salim932@googlemail.com
5th November 2013. London.

Add a Comment

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!