Home » কলাম » লন্ডনে তারেক ভক্তদের ডিজিএফআই বিরোধী টেক্সট আর খালেদা জিয়া বারে বার যে ভুলগুলো করে চলেছেন

লন্ডনে তারেক ভক্তদের ডিজিএফআই বিরোধী টেক্সট আর খালেদা জিয়া বারে বার যে ভুলগুলো করে চলেছেন

লন্ডন ট্রাফালগার স্কয়ার,-যেখানে দিনে-রাতে সকল সময় লোকে লোকারণ্য থাকে। বিশ্বের নানা প্রান্ত থেকে পর্যটক, শিক্ষাবিদ, রাজনীতি, কূটনীতি, সমর বিশ্লেষকদের পদচারণায় থাকে সরব। ট্রাফালগার স্কয়ার সংলগ্ন কভেন্ট গার্ডেন এবং এর আশ-পাশ এলাকা কূটনীতিক আর সামরিক বিশ্লেষকদের এতো বেশী পদচারণা থাকে যে, নিউইয়র্কের পর দ্বিতীয় এই এলাকা যেখানে সিটি কখনো ঘুমায়না। কোন কোন জায়গায় সেমিনার, কোনখানে আলোচনা, সভা, সিম্পোজিয়াম কিংবা কোন এক কোনে বসে টুক টাক ফুট নোট নিতে চলা লোকদের প্রায়ই দেখা মিলে এখানে। এমনি একজন খ্যাতিমান সামরিক বিশেষজ্ঞ, জাতি সংঘ সহ নানা পিস কিপিং এ যার রয়েছে ঈর্ষনীয় সাফল্য। সঙ্গত কারণেই প্রেসের সামনে সাক্ষাত কালে ভদ্রে দিতে চাননা।

কেমব্রিজ-অক্সফোর্ডে ছুটে যান আন্তর্জাতিক বিশ্লেষক আর বিশেষজ্ঞদের সভায় বক্তব্য ও মতামত তুলে ধরতে। বাংলাদেশের ১/১১ এবং বিগত সরকারগুলোর কার্যক্রম সহ বর্তমান ক্ষমতাসীন সরকার এবং এর বিরোধীদলগুলো নিয়ে এতো তথ্যের বিশাল ভান্ডার দেখে আমি হতবাক এবং বিমুগ্ধ। কৌশলে ১/১১ নিয়ে চুম্বক কিছু কথা-বার্তা তার কাছ থেকে জেনে নিয়েই পাঠকদের উদ্দেশ্যে শেয়ার করছি শুরুতে, আজকের লেখার অবতারণা করতেই।

২০০১ সালের খালেদা জিয়া যখন ক্ষমতায় তখন আটজন যোগ্য জেনারেলকে ডিঙ্গিয়ে ১/১১র নায়ক জেনারেল মঈন ইউ আহমদকে বিশ্বস্ত এবং অতি কাছের মনে করেই আর্মির জেনারেল করেছিলেন, যা ছিলো খালেদা জিয়ার দ্বিতীয় এবং সবচাইতে ভুল রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত। এর আগের টার্মে যখন খালেদা জিয়া ক্ষমতায় আসীন হন, তখন তার ভাই মীর্জা ইস্কান্দারের ভায়রা অর্থাৎ আত্মীয়তার সুবাধে নবম ডিভিশনের জিওসি ব্রিগেডিয়ার মাসুদ উদ্দিন চৌধুরীকে নিজেদের কাছের লোক মনে করেই প্রমোশন দিয়ে সামনে টেনে নিয়ে আসেন। খালেদা জিয়ার ঐ সময়কালীন সরকারে মাসুদ উদ্দিন খুব প্রভাবশালী ছিলেন, যেহেতু তিনি প্রধানমন্ত্রীর ভাইয়ের আত্মীয়। এটা ছিলো খালেদা জিয়ার প্রথম রাজনৈতিক ভুল সিদ্ধান্ত। অথচ মজার ব্যাপার হলো, এই মাসুদ উদ্দিন কিন্তু কখনো সরাসরি আর্মির রিক্রুট ছিলেননা। তিনি মূলত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের সময় একজন নেতা হিসেবে তোফায়েল-রাজ্জাকের সুপারিশে রক্ষীবাহিনীর একজন কমান্ডার হিসেবে আর্মিতে আত্মীকরণ হয়েছিলেন। যে কারণে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে রক্ষীবাহিনীর লোকদের বলা হতো জেআরজি- কখনো আর্মির লোক বলে ডাকা হতোনা। এখানে লক্ষণীয় যে, ১৯৯৬ সালে যখন আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসীন হয়, তখন এই মাসুদ উদ্দিন তোফায়েল-রাজ্জাকের(জীবিত কালীন সময় পর্যন্ত)বিশেষ দৃষ্টি কাড়তে সক্ষম হন, পুরনো সম্পর্ককে তিনি কাজে লাগিয়ে রাতারাতি প্রমোশন করে নেন। খালেদা জিয়া এর পরে যখন ক্ষমতাসীন হন, শুরুতেই ব্রিগেডিয়ার মাসুদকে সন্দেহের চোখে দেখলেও ভাই ইস্কান্দারের ভায়রার সুবাধে মাসুদ উদ্দিন বরং হাওয়া ভবন সহ প্রধানমন্ত্রীর কৃপা লাভে সক্ষম হন।কিন্তু মাসুদের কার্যক্রমে ও জেআরজির লোক পরিচয় পেয়ে হাওয়াভবন থেকে নির্দেশ জারি করা হয়েছিলো, নবম ডিভিশন প্রধানমন্ত্রীর অনুমতি ব্যাতিরেকে ঢাকা অভিমুখে মুভ করতে পারবেনা। ঐ সময় এটিএম আমিন উদ্দিন, ব্রিগেডিয়ার বারী সহ ১/১১ কুশীলব সকলেই কিন্তু খালেদা জিয়ার কাছে বিশ্বস্ত ছিলেন। আজকে খালেদা জিয়ার দেহরক্ষী (সেনাবাহিনীর এই লোক) খালেদা জিয়ার ক্ষমতাসীন থাকার সময় আর্মি থেকে বিতাড়িত অথচ মজার ব্যাপার ১/১১ পরবর্তী রাজনৈতিক অবস্থায় আওয়ামীলীগের শাসনামলে খালেদার দেহরক্ষী সেই আর্মিরই বিতাড়িত লোক। আত্মীয়তার পরিচয়, আর চাটুকারিতার প্রদর্শনী করে বিশ্বস্ত অর্জনকারীরা কি পরিমাণ বিএনপির ও খালেদা জিয়ার ক্ষতি করতে পারে, আমিন, বারী,মঈন,মাসুদই তার প্রকৃষ্ট উদাহরণ(এ তালিকা অনেক দীর্ঘ, অল্পই উল্লেখ করলাম)। এখানে আরেকটি বিষয় উল্লেখ্য যে, মধ্যপ্রাচ্য, ইউরোপ, আমেরিকার সহায়তায় ১/১১র সময়ে হাসিনার সাথে যখন সমঝোতা হয়, তখন কুশলী হাসিনা মঈন-ফখরউদ্দিন-আমিন-বারী-মাসুদ উদ্দিনের দ্বারা নির্যাতিত ও মাইনাস হওয়ার মতো অবস্থানে পড়েও তাদের সাথে সমঝোতা এই বলে করেছিলেন, হাসিনার সরকার ক্ষমতায় ক্ষমতায় এলে তাদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেবেননা, তাদের সেইফ এক্সিটের ব্যবস্থা করবেন। অন দ্য রেকর্ড হাসিনার এই সমঝোতা তিনি এখনো মেনে চলছেন।

এই তথ্যগুলোর এই কারণে উল্লেখ করলাম, আজকের রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে, দেখা যাচ্ছে, খালেদা জিয়া এখনো বিএনপিকে বর্তমান তরুণ আর্মি অফিসার আর বিদেশি বন্ধু, দাতা গোষ্ঠী, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সহ প্রভাবশালী দেশে যে ভাবে লবি করতে হয়, তার কোন কিছুই না করে বরং এখনো সেই পুরনো ধাঁচের রাজনীতি নিয়েই বার বার ভুল করেই চলেছেন। কেননা, আজকের রাজনৈতিক অবস্থার প্রেক্ষিতে চুলচেরা বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, আগামী দিনগুলো বিএনপির জন্য বড় দুর্দিন।যদিনা বিএনপি এখনই অত্যন্ত কৌশলী ও দূরদর্শী রাজনৈতিক গেইম না খেলে।

এখনকার তরুণ আর্মি অফিসারদের মধ্যে মরহুম রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের এখন পর্যন্ত আকাশচুম্বী জনপ্রিয়তা রয়েছে– যা হাসিনার মাথা ব্যাথার কারণ। খালেদা জিয়া এমন তথ্য অবগত কিনা, আমার কেন জানি মনে হয়, বাস্তব তথ্য থেকে তিনি অনেক অনেক দূরে। তরুণ আর্মির এই জেনারেশনের অফিসারদের সাথে বিএনপির দূরত্ব আকাশ আর জমিনের মতো। আর দিনে দিনে তিনি সেই দূরত্ব আরো বাড়িয়ে চলেছেন। এখনকার তরুণ আর্মি অফিসারেরা আর বাংলাদেশের তরুণ-তরুণীরা গতানুগতিক হরতাল, অবরোধ, ঘেরাওয়ের রাজনীতি পছন্দ করেনা। তারা চায়, সৃজনশীল, প্রতিভাবান, বুদ্ধিদীপ্ত রাজনৈতিক কর্মসূচী। বেশ কিছুদিন থেকে দেখে আসছি, খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত সহকারীরা রাজনৈতিক নেতাদের নিয়ন্ত্রণ করছেন, কর্মসূচী সাজাচ্ছেন। রাজনীতির অভিজ্ঞতা ও দক্ষতায় সমৃদ্ধ তরিকুল, গয়েশ্বর, মীর্জা আব্বাস, নজরুল ইসলাম, সাদেক হোসেন খোকা, আমান উল্লাহ আমান-এই ধরনের রাজনৈতিক নেতারা থাকেন খালেদা জিয়ার আউটার সার্কেলে। ব্যক্তিগত স্টাফ কর্মকর্তা থাকবেন অবশই। যেমন বিশ্বের সব দেশের সরকার প্রধান ও রাজনীতিবিদদের আছে। কিন্তু তারা কখনো রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত দেননা, কর্মসূচী ঠিক করেননা। বরং তারা থাকেন রাজনৈতিক নেতাদের নিয়ন্ত্রণের ভিতরে। যে কারণে দুই বারের জনপ্রিয় প্রধানমন্ত্রী হয়েও খালেদা জিয়ার পক্ষে বিশ্বের তাবৎ দাতা গোষ্ঠী ও আন্তর্জাতিক লবিদের সাথে সঠিকভাবে এড্রেস এবং সমন্বয় ও সঠিক ম্যাসেজ পৌছাতে ব্যর্থ হয়েছেন। খালেদা জিয়ার এই ব্যর্থতার সীমাহীন সুযোগটার পুরোটাই শেখ হাসিনা সদ্ব্যবহার দক্ষতার সাথে করেছেন। শেখ হাসিনা পেন্টাগন(স্টেট ডিপার্টম্যান্ট শুধু নয়) সহ ভারতের উঁচু মহল, ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং দাতাদের কাছে গ্রহণযোগ্য ভাবে জঙ্গি দমন, সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ আর রাজনৈতিক কৌশলে তিনি এমনভাবেই বিশ্বস্ত ম্যাসেজ তাদেরকে দিয়েছেন, এসব প্রশ্নে হাসিনা এবং আওয়ামীলীগের বিকল্প এই মুহূর্তে নেই। হাসিনার হয়ে জাতি সংঘের বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ডঃ মোমেন, আর হাসিনার উপদেষ্টা গওহর রিজভী ভারত,মার্কিন, ইউরোপীয়দের যেভাবে সঠিক ম্যাসেজ এড্রেস করতে পেরেছেন, সেক্ষেত্রে খালেদা জিয়া তার কতিপয় ব্যক্তিগত স্টাফ আর বিশেষ কিছু রাজনৈতিক নেতাদের দ্বারা কৌশল নির্ধারণেই সময় পার করে দিয়েছেন। আজকের তথ্য প্রবাহের আধুনিক উন্নত যুগে শিক্ষিত ও উন্নত রাজনৈতিক ডিপ্লোম্যাট আর সঠিক জায়গায় নক করে নাড়া দিতে পারে এমন পেশাজীবী সাংবাদিক, রাজনীতিক, সামরিক বিশ্লেষক, লবিষ্টদের তিনি চয়েস কিংবা দূরে রেখে কাজে লাগাতে পারেননি।

সোনাদিয়া দ্বীপে গভীর সমুদ্র বন্দর নির্মাণে চীন-ভারত-মায়ানমার-বাংলাদেশের স্বার্থ এবং ইনভেস্টম্যান্ট, ব্যবসা ও আন্তঃদেশ ও বহির্বিশ্বের সাথে যোগাযোগ যেমন সহজী করণ হবে, সেই সাথে এই উভয় রাষ্ট্রসমূহের স্বার্থ সমানভাবে জড়িত। এই প্রেক্ষাপটে ভারতীয় ও চীনের স্বার্থ যেমন বাংলাদেশ কেন্দ্রিক এক অভিন্ন এবং হাসিনার সরকারের সাথে কাজ করতে সম্মত, ঠিক তারও আগে গতবছর মার্কিনীরা সেন্ট মার্টিন দ্বীপে থ্রি-ডি সিসমোগ্রাফী প্রজেক্ট চুক্তি বাংলাদেশের সাথে সম্পন্ন করেছে, যা পেন্টাগনের জন্য হাসিনার সরকার আশীর্বাদ স্বরূপ। এই প্রেক্ষাপটে খালেদা জিয়া, বিএনপি এবং তার উপদেষ্টারা চীন, ভারত, মায়ানমার আর মার্কিনীদের সাথে লিয়াজো না করে শুধু মজীনা নির্ভর আর ব্রিটিশ এম্বাসাডার নির্ভর কূটনীতি কতোটুকু সাফল্য নিয়ে আসবে সেটাই দেখার বিষয়।

সন্দেহ নেই খালেদা জিয়া একজন জনপ্রিয় এবং আপোষহীন রাজনীতিবিদ। কিন্তু রাজনীতির মাঠে সব সময় একই কার্ড দিয়ে খেলে সাফল্য আশা করা যায়না। ফালু, মারুফ, আর হঠকারী সুবিধাবাদী নেতাদের উপর ভরসা করে আজকের যুগে বিএনপি এখনকার সময়ে জনপ্রিয় হয়েও ক্ষমতায় আসাটা হয়ে আছে এক বিরাট প্রশ্ন।

আজকে সকাল থেকে ব্রিটেন তারেক রহমানের সত্যিকার শুভাকাঙ্ক্ষী যারা, তাদের মোবাইলে এই নম্বর+৪৪৭৪৪০৪২৩৪৫৭ থেকে টেক্সট ছাড়া হচ্ছে, এই বলে যে, লন্ডনে সোহেন নামক এক ব্যক্তি তারেক রহমানকে ঘিরে রেখেছেন, মূলত: তারেক রহমানের নিরাপত্তা ও ইমেজ সংকট তৈরি করার জন্য এই ভদ্রলোককে ডিজিএফআইয়ের এজেন্ট বানানোর এক প্রচেষ্টায় প্রশ্ন জাগে, যে বা যারা নিজেদের অযোগ্যতা ঢাকার জন্য নিজেদের নেতার নামে-বেনামে ব্যবহার করে তারেক রহমানের কাছে আরো বিশ্বস্ত হওয়ার জন্য হাস্যকর চেষ্টা প্রতিনিয়ত করে যাচ্ছেন। টেক্সটে সোহেন নামক ব্যক্তিকে ধোলাই দেয়ার আহবান জানানো হয়েছে। প্রকৃত চিত্র হলো, তারেক রহমানের বাড়িতে মূলত: দুটি চক্র সক্রিয়। এর একটি আউট ডোর- যাদের নেতা মঈন আর তাকে ঘিরে সোহেন, আনোয়ার, পারভেজ আর অন্ধর মহলের নেতৃত্বে দুজন আছেন(নিরাপত্তার কারনে তাদের নাম এখানে উহ্য রাখলাম)। মঈন নামক ছাত্রদল কর্মী মনে করেন তাকে ছাড়া কারো পক্ষে তারেক রহমানের কাছে যাওয়া কারো পক্ষে সম্ভব নয়।আদতেও তাই। সোহেন পরে এসে এই গ্রুপে ঢুকে মঈনকে টেক্কা দিয়ে তারেক রহমানের নিকটবর্তী হয়ে যান। ধারণা করা হচ্ছে, তাদের নিজেদের মধ্যকার এই দ্বন্ধ(নেতার প্রিয় পাত্র কে কতো বেশী)লন্ডনে টেক্সট ম্যাসেজের মাধ্যমে একে অন্যকে তারেক রহমানকে ঘিরে ডিজিএফআই, আর র-এর এজেন্ট বানিয়ে ঘায়েল করার ব্যর্থ চেষ্টা তাদের নেতার ইমেজকে কোথায় নিয়ে যাচ্ছে একটুও কি ভেবে দেখছে তারা? এই দুই চক্রের মনে রাখা দরকার, ব্রিটিশ সরকারের সহযোগিতা এবং নিরাপত্তা তারেক রহমানের জন্য যথেষ্ট। রিউমার, গসিপ, মিথ্যে তথ্য সরবরাহ করে সাময়িক ফায়দা হাসিল করতে সক্ষম হলেও অসুস্থ নেতার দুর্বলতার সুযোগে বিএনপির আন্তর্জাতিক লবিষ্টদের কাজে বাধা সৃষ্টি করে বরং তারেক রহমানের কাছে থেকে তারেকের সবচাইতে বেশী ক্ষতিই করে চলেছো তোমরা। তবে, এই সব লোকদের সঙ্গী বিসর্জন নয়, বরং এদের বাইরে বুদ্ধিবৃত্তিক, লজিস্টিক সাপোর্ট এবং তারেক রহমানের জন্য আগামীর সরকারের পাদপ্রদীপে নিয়ে আসার জন্য যাদের জ্ঞান, মেধা, অভিজ্ঞতা কাজে লাগানোর সময়ের এই দাবী ও চাহিদার সাথে তারেক রহমানের ভেবে দেখা উচিৎ। লন্ডনে তারেক জিয়া পুরোপুরি সুস্থ হননি। হাসিনার সরকারের কাছে এ তথ্য যেমন আছে, একইভাবে আওয়ামীলীগের ডিজিটাল টিমের বিপরীতে তারেক রহমানের রাজনৈতিক ক্যারিশম্যাটিক ক্রেজ যে অবস্থান রয়েছে, তাকেও তিনি কাজে লাগাতে পারছেননা। সঙ্গত কারণেই অসুস্থতা একটা বড় ফ্যাক্টর হলেও রাজনীতি ও কূটনৈতিক চালে দক্ষ, অভিজ্ঞ, চৌকস বিশ্বস্ত পেশাদার ব্যক্তিত্বের সমন্বয়ে টিম ওয়ার্ক স্প্রিট আরো শানিত, এফিশিয়েন্ট ও ক্ষিপ্র করা উচিত বলে অভিজ্ঞ মহলের অভিমত।

হাসিনা কিছুতেই চাননা বিএনপি ও খালেদা জিয়া নির্বাচনে আসুক। বিএনপির একটি অংশ আন্দোলন-সংগ্রামের নামে খালেদাকে কেবলমাত্র হরতাল অবরোধের মতো কঠিন আন্দোলনের দিকে নিয়ে যেতে চাচ্ছে। যা আজকের যুগে অচল রাজনৈতিক কর্মসূচী। নির্বাচন যথাসময়ে সংগঠিত হবে সন্দেহ নাই। বিএনপি সেই নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করবে। বিএনপিকে দেখতে হবে, হাসিনার অধীনে কিংবা সর্বদলীয় সরকারের অধীনে বা অন্য কোন ফ্রেমে নির্বাচনে অংশ গ্রহণের জন্য কতো কম ঝুঁকির পরিমাণ( রিস্ক ফ্যাক্টর) কমানো যায়, ব্যবসায়ী, সুশীল সমাজ, সাংবাদিক, শিক্ষক, পেশাজীবী, বুদ্ধিজীবী, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সকলকে নিয়ে সেই সব ঝুঁকির পরিমাণ কমিয়ে নিয়ে আসার জন্য আন্দোলন, কৌশল, চাপ এবং নির্বাচনী প্রস্তুতি নিয়ে এগুতে হবে। এর কোন বিকল্প নেই।এমনটাই বললেন লন্ডনের সাংবাদিক, গবেষক বাসন নজরুল ইসলাম। কেননা মজীনা খালেদা জিয়াকে ক্ষমতায় নিয়ে আসবে, সেকারণে স্টেট ডিপার্টম্যান্টে গিয়েছেন পলিসি নির্ধারণে।কিন্তু মার্কিন কূটনীতিতে কেবল স্টেট ডিপার্টম্যান্ট একচ্ছত্র ভূমিকা রাখে, তা ঠিক নয়। এর উপরে রয়েছে পেন্টাগনের ষ্ট্র্যাটেজী, যা মজীনার মতো নীচের লেভেলের দূতের পক্ষে কিছুতেই অবগত হওয়া সম্ভব নয়। বিএনপি বিগত পাঁচ বছরে পেন্টাগন, ভারতীয় উঁচু মহলের সাথে বিন্দুমাত্র লিয়াজো যথাযথভাবে করেছে বলে মনে হয়না। ২০০১ এর সময়কালীন সময়ে খালেদা জিয়ার সরকার বোমাবাজদের ধরলো, বাংলা ভাইকেও ধরলো অথচ জঙ্গি এবং সন্ত্রাসের পুরো তকমা এখন খালেদা জিয়া ও বিএনপির গায়ে লেগে আছে। ২০০১ এর ক্ষমতায় আরোহণের সময় মসজিদ, মন্দির, গির্জায় আগুন লাগার ঘটনাগুলো ভারতীয় কর্তৃপক্ষ ও পেন্টাগন অত্যন্ত সিরিয়াসলি নিয়েছে, যা খালেদা জিয়ার অজানা নয়। তারপরেও খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত উপদেষ্টারা অরাজনৈতিক ও নন-ডিপ্লোম্যাটিক(শুধু ফরেন সার্ভিসে কাজ করলেই দক্ষ ডিপ্লোম্যাট হওয়া যায়না) হওয়ার কারণেই যোজন যোজন দূরত্ব ও সন্দেহের হিট লিস্টে রয়ে যায় বিএনপি।

আগেই বলেছি, বিএনপির সামনের দিনগুলো অত্যন্ত কঠিন এবং বিপদ সংকুল।আগামী নির্বাচনের জন্য রিস্ক ফ্যাক্টরগুলো যদি কমিয়ে না আনার চেষ্টা খালেদা না করেন, কুশলী রাজনীতির খেলা না খেলেন, তবে বিএনপির জন্য ভয়াবহ রাজনৈতিক অবস্থা অপেক্ষা করছে। আর এ সব না করে যেন তেন ভাবে জনপ্রিয়তার পারদের মাত্রার উর্ধবমুখী দেখে যদি নির্বাচনে যায়, তাহলে বিএনপি মারাত্মক ভুল করবে বলে বাসন নজরুল ইসলামের অভিমত। খালেদা জিয়াকে নিজের বিশ্বস্ত ও আস্থাভাজন রাজনৈতিক নেতা-কর্মীকে চিনতে হবে, মূল্যায়ন করতে হবে। ব্যক্তিগত স্টাফ নির্ভর রাজনীতি থেকে সরে আসতে হবে। পাশাপাশি বিদেশী কূটনীতি আর ডোনারদের সাথে দেন-দরবার আর লবিষ্ট করতে সক্ষম রাজনৈতিক নেতা, কর্মীদের রিক্রুট করতে হবে। ডঃ মোহাম্মদের ইউনুসের সাথে যে বৃহৎ এক শক্তিশালী গ্রুপ রয়েছে-উভয়ের স্বার্থেই একে অন্যের সাথে সম্পর্ক টাই আপ করতে হবে। কেননা নির্বাচনের পরে আওয়ামীলীগ ফিরে আসলে খালেদা জিয়া ও ইউনুসের উপর খড়গ নেমে আসবে, সন্দেহ নেই। হাসিনা যদি কোনমতে ফিরে আসেন কোয়ালিশন সরকারের মাধ্যমে হলেও ইউনুস এবং বিএনপি প্রধান টার্গেট হবে বলে মনে করেন বাসন নজরুল ইসলাম। কারণ তার মতে, জামায়াত তার রাজনৈতিক অস্তিত্বের ও নতুন প্রজন্মের প্রেরণায় আওয়ামীলীগ বিরোধী ভূমিকা থেকে সরে আসতে বাধ্য হবে। হাসিনার ফিরে আসাতে ভারতীয় ও মার্কিনীদের চাপে ওআইসির চাপে জামায়াত-হেফাজত তাই করতে বাধ্য হবে, যদিও আপাতত: নির্বাচনকালিন সময়ে জামায়াত-হেফাজত মরণ কামড় দিয়ে মাঠে নামবে।খালেদা জিয়া কি এতো সব ভেবে দেখবেন? (চলবে)।

Salim932@googlemail.com
3rd November 2013 .

Please follow and like us:

Add a Comment

Your email address will not be published.

Follow by Email
YouTube
Pinterest
LinkedIn
Share
Instagram
error: Content is protected !!