Home » কলাম » লন্ডনে কেমন আছেন তারেক জিয়া ?

লন্ডনে কেমন আছেন তারেক জিয়া ?

তারেক জিয়া বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব, লন্ডনে চিকিৎসাধীন । কারণ এক-এগারোর মঈন উদ্দিন-ফখর উদ্দিনের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সীমাহীন বেপরোয়া আক্রোশ আর নির্যাতনের শিকার বিএনপি পরিবার ও তারেক জিয়া, যার ফলে তারুণ্যের দৃপ্ত পদচারণায়, শহীদ জিয়ার কল্যাণমূলক রাজনৈতিক পাঠশালায় যে তারেক জিয়া নতুন নতুন দর্শন আর নয়া রাজনৈতিক কর্মশালার চিন্তা-শক্তি দিয়ে বাংলাদেশের লাখো তরুণ-তরুণীর হ্রদয়ে এবং বিশেষ করে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের শত-সহস্র তরুণ-তরুণীদের জাতীয়তাবাদী রাজনৈতিক দীক্ষামন্ত্রে উজ্জীবিত করে রাখতেন, অসম্ভব এক সম্মোহনী শক্তি দিয়ে জাগিয়ে তুলেছিলেন, টেকনাফ থেকে তেতুলিয়া আর সুন্দরবন থেকে বাহাদুরাবাদ হয়ে প্রাচ্য-প্রতীচ্যে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা হাজারো-লাখো বাঙালি তরুণ হ্রদয়ে নয়া জাতীয়তাবাদী রাজনীতির দীক্ষামন্ত্রে ঝড়ের ন্যায় আলোড়ন তুলেছিলেন, হালের রাজনীতিতে দেশ-বিদেশে আলোচিত ও বিতর্কিত সেই তারুণ্যের অহংকার এই জাতীয়তাবাদী নেতা লন্ডনে কেমন করে দিন যাপন করছেন, কি ভাবছেন আগামীর বাংলাদেশকে নিয়ে, আগামীর তরুণ প্রজন্মকে নিয়ে- স্বভাবতই হাজারো বাঙালি প্রাণের সাথে এই কৌতূহল জাগে। আর সে জাগা থেকেই আজকের এই অবতারণা: আগামীর বাংলাদেশের স্বপ্নদ্রষ্টা, এই নায়ক, এই নেতা কেমন আছেন ।

লন্ডনের এক নিরিবিলি শান্ত এলাকায় বাঙালির এই তরুণ নেতা পরিবার নিয়ে এখন বসবাস। এখনো কোমরের ব্যথায় কুঁকড়ে উঠেন। নিয়মিত ফিজয়তে চেকআপ এবং ফিজিয় থ্যারাপীর জন্য ডাক্তারের শরণাপন্ন হন। তবে তা এখন আগের মতো সপ্তাহে নিবিড় থ্যারাপী নয়।বর্তমানে পাক্ষিকভাবে একদিন ফিজিও থ্যারাপী নিতে হয়। এর বাইরে কন্যা জেমাইমাকে স্কুলে মাজে মধ্যে পৌঁছে দেন কিংবা নিতে আসেন। স্ত্রী ডাঃ জুবাইদাকে উচ্চতর কোর্সে সহযোগিতা করে চলেছেন। উভয়েই এখন উভয়ের সুন্দর সাপোর্ট হয়ে আছেন। দেশে থাকাকালীন সরকারি কাজের ব্যস্ততা হেতু কন্যা ও পরিবারকে সময় দিতে না পারলেও বলা যায়, পুরো সময়টাই এখন পরিবারকে দিচ্ছেন, উপভোগ করছেন। তবে কোমরের ব্যথার কারণে এক জায়গাতে বেশীক্ষণ বসে থাকাটা কষ্টকর হয়। ডাক্তার বলেছেন ধীরে ধীরে সেটাও সেরে উঠবেন। তবে এখনো পুরোপুরি সুস্থ হতে আরো সময়ের প্রয়োজন।

ইন্টারনেট ও অনলাইন পত্রিকার মাধ্যমে দেশের সকল খবর নিয়মিত রাখছেন। দেশ-বিদেশের দলীয় নেতা-কর্মীদের নিজস্ব ব্যক্তিগত বিশ্বস্ত চ্যানেলের মাধ্যমে প্রয়োজনীয় দিক-নির্দেশনা দিয়ে চলেছেন।সারা দেশের পরীক্ষিত, আদর্শবান, আওয়ামীলীগ সরকারের নির্যাতন নিপীড়নের শিকার নেতা-কর্মীদের ডাটা বেজ পূর্ণভাবে তৈরি করে রেখেছেন, যা নিয়মিত আপডেট করে চলেছেন। দেশ থেকে দলীয় নেতা-কর্মী বিশ্বস্ত চ্যানেলের মাধ্যমে এসে তাদের প্রিয় নেতার সান্নিধ্য এক মুহূর্তের জন্যে হলেও পেয়ে থাকেন এবং তারেক জিয়ার নির্দেশনা নিয়ে থাকেন। এর বাইরেও আগামী বাংলাদেশের সরকার, গণতন্ত্র, উন্নয়ন ইত্যাদি নিয়ে বিস্তর এক কর্মপরিকল্পনা সাজিয়ে রাখছেন নিজস্ব ল্যাপটপে।নিয়মিত বিভিন্ন কূটনৈতিক চ্যানেলের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছেন। আগামীর বাংলাদেশ কি করে উন্নত, আধুনিক মালয়েশিয়া, নিরক্ষরতা মুক্ত, উন্নত স্বাস্থ্য সেবা, ব্রিটেনের আদলে উন্নত ডাক্তারী সেবামূলক কার্যক্রম সরকারি উদ্যোগে পরিচালনা, পরিকল্পনা ও বাস্তবায়ন, আধুনিক সোলার টেকনোলজি ও বিদ্যুতের ঘাটতি পূরণ করে স্বয়ং সম্পূর্ণ হওয়া যায়, অর্থনৈতিক স্বাবলম্বিতা কি করে রপ্ত করা যায়- সেই সব নিয়ে বিস্তর এবং ব্যাপক এক কর্মযজ্ঞের মহা-পরিকল্পনা নিয়ে নিয়মিত আলাপ-আলোচনা ও নীতিমালা প্রণয়ন করে রেখেছেন আগামী দিনের বাংলাদেশের এই তরুণ নেতা। কারো সঙ্গে বিবাদ নয়, সবার সঙ্গে বন্ধুত্ব এবং ভারত, চীন, মায়ানমার, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, কোরিয়া, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র , ইইউ, ইউকে সহ প্রভৃতি দেশের সাথে বাংলাদেশের ব্যাপক আর্থিক, সামাজিক, উন্নয়ন মূলক কর্মসূচী এবং প্রযুক্তিগত সহায়তা কি ভাবে লাভ করে কাজে লাগিয়ে উন্নতি করা যায়, সেই সব সমীক্ষা ও কার্যক্রম নিয়ে ব্যাপকভাবে ব্যস্ত আজকের লন্ডন প্রবাসী এই তারেক জিয়া।

বিএনপির সরকারের জন্য অপরিহার্য শ্রেণী-পেশার মানুষ ও প্রতিনিধিদের সাথে যথাযথ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে যোগাযোগ অব্যাহত আছে। বিএনপির এবং তারেক জিয়ার অত্যন্ত বিশ্বস্ত এই নেতা জানালেন, তারেক জিয়া নিয়মিত পাঁচ ওয়াক্ত নামায আদায় করেন, কোরআন তেলাওয়াত করেন, সৌদি আরবে মসজিদে নববীতে এবং হুজুর সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের রওজা মোবারক জিয়ারতের সময় ও প্রতি ওয়াক্তের দোয়াতে তিনি দেশ ও জনগণের কল্যাণ কামনা করে আল্লাহর দরবারে দোয়া করেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির এই নেতা, যিনি পারিবারিক সকল কাজ-কর্ম করে থাকেন, আরো জানালেন, তারেক জিয়া ব্যক্তিগত ভাবে কারো প্রতি কোন বিদ্বেষ পোষণ করেননা, এমনকি শারীরিকভাবে এতো নির্যাতন ও মিথ্যা কাহিনী সাজিয়ে পত্রিকায় গল্প-গসিপ প্রকাশের পরও কারো প্রতি কখনো ক্রোধ বা আক্রোশ এমনকি প্রতিহিংসা প্রদর্শন করেননি বা মনের মধ্যে পোষণ করেননা। শুধু একটি কথাই বলেন, যে দেশের জন্য আমার আব্বা নিজের জান বাজী রেখে, এমনকি পরিবার-পরিজনের সুখ-শান্তির কথা না ভেবে ১৯৭১ সালে শত্রুর বিরুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে দেশকে স্বাধীন করে তুললেন, একজন সফল রাষ্ট্র পতি হয়েও নিজে কখনো পরিবার কিংবা আত্মীয়স্বজনের জন্য কোন সম্পদ না করে দেশের জনগণের জন্য কাজ করে গেলেন, সেই প্রিয় বাবার, বাংলাদেশের জনতার সেই প্রিয় আমি মেজর জিয়া বলছির দুই সন্তান কি গোটা দেশের জন্য এতোই বাধা হয়ে দাঁড়ালাম, রাষ্ট্র যন্ত্রের সকল শক্তি দিয়ে শহীদ জিয়াউর রহমানের দুই ছেলেকে জীবনের জন্য শেষ করে দেয়ার জন্যে উঠে পড়ে লেগেই শুধু ক্ষান্ত নয়, শারীরিকভাবে আঘাতের পর এখন সব দিক দিয়ে শেষ করে দেয়ার ষড়যন্ত্র অব্যাহত রাখার মধ্যে কোন সভ্যতা, কোন উন্নত সংস্কৃতি চালু করা হচ্ছে, বোধ গম্য নয়।

প্রকৃত অর্থেই, একজন তারেক রহমান, একজন বিএনপির মতো বৃহৎ বিরোধীদল, যে দল বাংলাদেশে বেশ কয়েকবার রাষ্ট্র ক্ষমতায় জনগণের ম্যান্ডেট নিয়ে অধিষ্ঠিত হয়েছে, সেই দলের একজন তরুণ এবং আগামী দিনের অবিসংবাদিত জাতীয়তাবাদী তরুণ নেতৃত্ব, যে দেশের প্রধানমন্ত্রী হয়ে জাতিকে নেতৃত্ব দিবে, তাকে এমন নিষ্ঠুরভাবে, অগণতান্ত্রিক সরকারের দ্বারা, কেবলমাত্র একজন ব্যক্তি তারেক জিয়াকে একেবারে পঙ্গু করে দেয়ার হীন উদ্দেশ্যে কি করে মঈন উদ্দিন আর ফখর উদ্দিনের সরকার অমানবিক নির্যাতন করতে পারলো, আজকে সময় এসেছে যথাযথ নিরপেক্ষ এক কমিশন গঠনের মাধ্যমে এর সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচারের ব্যবস্থা করে আইনের আওতায় নিয়ে আসা। কারণ কেউই ফেরেশতা নন, যেমন ফেরেশতা নন মঈনউদ্দিন-ফখর উদ্দিন। কেন কি কারণে, কোন উদ্দেশ্যে তারেক জিয়াকে রিমান্ডের নামে এমন বর্বরোচিত কায়দায় অন্ধকারের সেই প্রকোষ্ঠে চোখ বেধে নির্যাতন করা হয়েছিলো, কি ছিলো তাদের উদ্দেশ্য ?, কে তাদের এতো হিংস্র হতে সীমাহীন ক্ষমতার অপব্যবহার করতে দিয়েছিলো ?, তা তাদের বলতে হবে। এভাবে একের পর এক রিমান্ডের নামে বর্বরোচিত নির্যাতন কোন সভ্য গণতান্ত্রিক দেশে আর কতো চলবে? কেউই আইনের ঊর্ধ্বে নন ? রাষ্ট্র কাউকে সীমাহীন ক্ষমতা ব্যবহারের বা প্রদর্শনের সুযোগ দেয়নি ? যেন তেন ক্ষমতা কুক্ষিগত ও ব্যবহারের নাম স্বাধীনতা নয় ?

লন্ডনের নিরিবিলি ঐ শান্ত বাড়িতে বিএনপির ঐ নেতার সুবাধে তারেক জিয়াকে নিরাপদ দূরত্ব থেকে যখন দেখছিলাম, তখন সত্যি অবাক বিস্ময়ে হতবাক হয়ে যাই। যত অপরাধ করুক, সেই অপরাধ প্রমাণিত হওয়ার আগে, কিংবা কতিপয় রাজনৈতিক গোষ্ঠীর অপরাধের কারণে দলীয় প্রধানকে উপযুক্ত সাক্ষ্য প্রমাণ ছাড়া, এমনকি আইনি প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে না নিয়ে রাতারাতি ঐ ১/১১র সরকার কেমন দুঃসাহসের সাথে, অন্ধকারের ঐ শক্তির পরামর্শে ও তাঁবেদারি করতে গিয়ে, জাতীয়তাবাদী এই তরুণ নেতাকে কি নির্মম আর নিষ্টুরভাবেইনা অত্যাচার করেছে, একেবারে শেষ করে দিতে চেয়েছিলো, এর নাম কি গণতন্ত্র ? এর নাম কি সঠিক বিচার ব্যবস্থা ? এর নামতো আদিম বর্বরতা। আর সেই বর্বরতাকে যে বা যারা প্রশ্রয় ও সমর্থন দিয়েছিলো বা দিয়েছেন, তারাও সমান অপরাধে অপরাধী। কারণ সেই ১/১১র সরকার এমন ভয়ানক ভাবে এই লোকটিকে নির্যাতন করেছে, যে কারণে আজকে চার বছর পরেও এতো আধুনিক উন্নত চিকিৎসার পরেও এই লোকটি এখনো ঠিক মতো শির দাড়া সোজা করে কিছুক্ষণ দাঁড়াতে পারেননা। আমরা যারা তারেক জিয়ার কল্প-কাহিনী নিয়ে বাজার গরম করে রেখেছি, একটিবারও কি ভেবে দেখেছি, এমন নির্দয় নিষ্ঠুর ভয়ানক নির্যাতন কি আজকের কোন সভ্য সমাজে এক মুহূর্তের জন্য কেউ চিন্তা করতে পারেন ? প্রিয় পাঠক একবার ভেবে দেখুন, আজকে যারা তারেক জিয়ার বিরোধিতা করতে গিয়ে তারেক জিয়ার শারীরিক নির্যাতনের জন্য বাহবা দেন, একবার ভেবে দেখুন এরকম কোন দুর্ঘটনাতেও যদি আপনার উপর পতিত হয়, তাহলে কি হবে বা কি ভাববেন, কাকে দুষ দিবেন ? আজকে সমাজের প্রতিটি রন্ধ্রে রন্ধ্রে দুর্নীতি গ্রাস করে আছে, এমন কোন পরিবার পাওয়া যাবেনা, যারা দুর্নীতি ( প্রান্তিক জীবী বাদে) করে সমাজে চলতেছেননা, প্রতিটি সেক্টরে, প্রতিটি মুহূর্তে দুর্নীতির সাথে বসবাস এই বাংলার আপনার আমার সকলের। তাহলে একজন তারেক জিয়া কি এমন সম্পদের পাহাড় গড়ে তুললো যে প্রমাণিত হওয়ার আগেই, শুধুমাত্র কতিপয় রিপোর্টের উপর ভিত্তি করে বা শুনা কথায় তারেক জিয়াকে এমন নিষ্ঠুরভাবে নির্যাতন করতে হবে ? অথচ যাদের দুর্নীতি আজ হাতে-নাতে প্রমাণিত, তারাওতো দিব্যি বহাল তবিয়তে আছেন ? তাহলে তারেক জিয়ার অপরাধ কোথায় ?
তারেক জিয়া এখন ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে উঠছেন। দেশের রাজনীতি ও আগামী দিনের সরকার গঠন নিয়ে নীরবে কাজ করে চলেছেন। লন্ডন থেকেই আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি তার প্রার্থিতা ঘোষণা করবেন ও প্রতিদ্বন্ধিতা করবেন। বিএনপি দলীয় সম্ভাব্য জনপ্রিয় ক্যান্ডিডেটদের আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মাঠ পর্যায়ের জরিপ শেষে তালিকা করে নিয়েছেন। তারেক জিয়ার মনোনয়ন লাভের জন্য বিএনপির নেতা-কর্মীরাও লন্ডনে এসে দেখা করে যাচ্ছেন। এমনকি সমমনা দলের সম্ভাব্য প্রার্থীরাও তারেক জিয়ার সাথে লন্ডনে এসে সাক্ষাত করে যাচ্ছেন।

বাংলাদেশের জনগণ এখন পরিবর্তন চাচ্ছে। আপামর জনগণ এখন আওয়ামীলীগের দুঃশাসন, নিপীড়ন, লুট-পাট, ছাত্রলীগের তাণ্ডব, দখল বাণিজ্য, টেন্ডার বাণিজ্য, হল মার্ক, ডেস্টিনি, সোনালী, পদ্মা কেলেঙ্কারি প্রভৃতির কারণে জনগণ এখন নতুন নেতৃত্ব খুঁজছে। বিএনপি এবং সমমনা দলগুলো এখন তারেক জিয়ার নেতৃত্বে অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছে। তারেক জিয়াও এখন সময়, সুযোগ আর জনতার আহবানে সাড়া দিতে প্রস্তুতি নিচ্ছেন। জনতার তারেকের এই অল্প বিস্তর প্রস্ততিতে আওয়ামীলীগের সরকার কাঁপন উঠেছে।আর সেই তারেক কম্পনের ঢেউ এখন চারটি সিটি কর্পোরেশনের অভাবনীয় সাফল্যে সরকারের জন্য নীরব এক ব্যালট বিপ্লবের মাধ্যমে লাল কার্ড জনগণ প্রদর্শন করেছে। গাজীপুর নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতাসীন সরকারের তাণ্ডব, দুর্নীতি, হরিলুট আর অতি অহংকারের মহাপ্রলয়ের যাত্রা ধ্বনি শুরু হবে, বাংলাদেশের অগণিত, লাখো তারেক জিয়ার ভক্ত, অনুরাগী আর অনুসারীরা তাই মনে করেন বলে বিএনপির এই নেতার দাবী।বাস্তবে তাই হতে চলেছে-গাজীপুর বিজয়ের মাধ্যমে……

4th July 2013.

Please follow and like us:

Add a Comment

Your email address will not be published.

Follow by Email
YouTube
Pinterest
LinkedIn
Share
Instagram
error: Content is protected !!