Home » লন্ডন নিউজ » ব্রিটিশ পর্যটন ভিসার বন্ড নিয়ে বেন হোর বেল সলিসিটর্স এর মতামত: প্রতিকারে আমাদের করণীয়

ব্রিটিশ পর্যটন ভিসার বন্ড নিয়ে বেন হোর বেল সলিসিটর্স এর মতামত: প্রতিকারে আমাদের করণীয়

সম্প্রতি ব্রিটিশ সরকার বাংলাদেশ, ঘানা, নাইজেরিয়া, ভারত, শ্রীলংকার নাগরিকদের জন্য নয়া বন্ড-সিস্টেমের পর্যটন ভিসা নীতিমালা প্রণয়ন করেছে। বলা হচ্ছে আগামী নভেম্বর থেকে এই নয়া নীতিমালা কার্যকর করা হবে।নয়া নীতিতে বলা হচ্ছে, ইমিগ্র্যাশনের অপব্যবহার রোধ এবং মেয়াদ পূরণের পর অবৈধভাবে বসবাসের রেওয়াজ রুখতে সরকার এই বন্ড-সিস্টেমের নীতি চালু করতে যাচ্ছে।এটা সত্যি অনেকেই ভ্রমণ ভিসার মেয়াদ শেষ হওয়ার পরেও দেশে ফিরেননা। কিন্তু এতে প্রকৃত ভ্রমণকারী এই নিয়মের ফলে বা ফ্যামিলি ভিসায় যারা নিয়মিত ভ্রমণ করে থাকেন তারা বেশ ঝামেলায় পড়বেন, তাতে কোন সন্দেহ নেই।

ব্রিটেনে বাংলাদেশের এবং বিশেষ করে বৃহত্তর সিলেটের ব্যাপক জনগোষ্ঠীর পরিবার পরিজন সহ বসবাস। এর মধ্যে যেমন রয়েছে ভারত, পাকিস্তান, ঘানা, শ্রীলংকার জনগণও। বৃহত্তর সিলেটের জনগণ এখন পরিবার-পরিজন সহ ব্রিটেনে বসবাস করছেন। বিয়ে-শাদি, ব্যবসা, ধর্মীয় অনুষ্ঠানে দেশে থাকা এক্সটেন্টেডেট পরিবারের সদস্যদের উৎসব-পার্বণে ভ্রমণের রেওয়াজ চালু রয়েছে।ভারতেরও উল্লেখযোগ্য সংখ্যক পরিবারের সদস্যগণ এই সুযোগের সদ্ব্যবহার করে থাকেন। নতুন নিয়মের এই বন্ড বা জামানত প্রথার ফলে প্রকৃত ভ্রমণকারীরা বেকায়দায় পড়বেন, তাতে কোন সন্দেহ নাই।

আবার ইমিগ্র্যাশন আইনের সব চাইতে অপব্যবহার যে দেশটি করে থাকে, সেই পাকিস্তানের কারণে ঢালাওভাবে সকল দেশকে অন্তর্ভুক্ত করাতে অনেক লিবার্টি গ্রুপ সহ নানা পেশার লোকদের মধ্যে এই নয়া নীতি নিয়ে বেশ সন্দেহ ও সোচ্চার হতে দেখা যাচ্ছে।

ইতিমধ্যে ভারতীয় ব্যবসায়ীদের সংগঠন কনফেডারেশন অব ইন্ডিয়ান ইন্ডাস্ট্রি এই নীতির কঠোর সমালোচনা করেছে। তারা এটাকে হাইলি ডিসক্রিমেনটরী হিসেবে উল্লেখ করেছেন।তারা এই নীতির ব্যাপারে তাদের অসন্তুষ্টির কথা সরাসরি জানিয়ে দিয়েছেন।তারা বলছেন এতে দুই দেশের মধ্যে সম্পর্কের ক্ষেত্রে নেতিবাচক অবস্থার সৃষ্টি করবে।কনফেডারেশনটি ইন্ডিয়ার সবচাইতে বড় ব্যবসায়িক সংগঠন।ভারতীয় ব্যবসায়ীদের এই মনোভাব অনেকটাই ভারত সরকারের দৃষ্টিভঙ্গির প্রতিফলন। বিবিসি অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারের ভারতীয় ব্যবসায়ীদের ব্রিটিশ সরকারের নেয়া এই নীতির কঠোর সমালোচনা ফলাও করে প্রকাশ করেছে, যার লিঙ্ক হলো-

http://www.bbc.co.uk/news/uk-politics-23044324

এদিকে হোম সেক্রেটারি থেরেসা মে বলছেন, ওভার ষ্টেয়ারদের রুখতে এবং ইমিগ্র্যাশন ব্যবস্থার বিভিন্ন দিকের ফোকাসের ভিত্তিতে কি ভাবে এপ্লাই করা যায় সেই সব খতিয়ে দেখতে পাইলট প্রকল্প ভিত্তিতে এই বন্ড ব্যবস্থা করা হচ্ছে।ডাউনিং ষ্ট্রীট থেরেসা মের সাথে একাত্ম হয়ে বলছে, এই ওভার ষ্টেয়ারদের প্রতিহত করার লক্ষ্যে ইমিগ্র্যাশনের বিভিন্ন দিকের মধ্যে এই বন্ড একটি অপশন হিসেবে তারা দেখছেন। ভারতীয় ছাত্রদের ইতিমধ্যে গ্রাজুয়েশন শেষ করে ব্রিটেনে অবস্থানের জন্য ২০ হাজার পাউন্ডের বেতন প্রমাণের ফলে এটা এখন অসম্ভব হয়ে পড়েছে ভারতীয় ছাত্রদের ব্রিটেনে আকর্ষণ করতে, যদিও লন্ডনের মেয়র বরিস জনসন গত ফেব্রুয়ারিতে ভারত সফরের সময় ক্যামেরুন সরকারকে এ বিষয় পুনরায় ভাববার আহবান করেছিলেন।

এদিকে কোয়ালিশন সরকারের উপ-প্রধানমন্ত্রী নিক ক্লেগ সরকারের এই নীতিকে সমর্থন করেছেন।

ব্রিটিশ সরকারের এই নীতিমালা নিয়ে কথা হয় বিখ্যাত ইমিগ্র্যাশন বিশেষজ্ঞ সলিসিটর মিঃ ডেভিড ফ্রম বেন হোর বেল সলিসিটর্স ফার্মের সাথে।প্রায় দুই বছর আগে যখন এপয়্যান্টম্যান্ট নিয়ে এসেছিলাম এই ফার্মে, তখন সাড়ে তিন ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হয়েছিলো সাক্ষাতের জন্য।সরকারের কঠোর ইমিগ্র্যাশন নীতির কারণে বেন হোর বেল এর বিখ্যাত ফার্মে আগের মতো আর ভিড় পরিলক্ষিত হয়নি। তবে ব্যস্ততা বেড়েছে সরকারের কনসাল্ট্যান্সীতে। বেন হোর বেল সরকারের এই নীতির ব্যাপারে বলেছেন, ২০১৫ সালের মধ্যে কনজারভেটিভ সরকার ইমিগ্র্যাশনের টার্গেট ১০০,০০০ নীচে নামিয়ে আনার যে উদ্যোগ গ্রহণ করেছে, এটা মূলত সেই টার্গেট বাস্তবায়নে জন্য ইমিগ্র্যাশনের নানা দিক ফোকাসিং করে বিভিন্ন অবস্থার প্রেক্ষিতে ভিন্ন ভিন্ন ভাবে যে সব নীতি মালা সরকার গ্রহণ করে থাকে, এই বন্ড-সিস্টেম মূলত সেরকম একটি অপশন।বাস্তবায়ন নির্ভর করছে এর কার্যকারিতার উপর। হোম অফিস, ইমিগ্র্যাশন অফিসার ও বিভিন্ন দেশের কনস্যুলার সেকশনের উপর।বাংলাদেশ এবং বিশেষ করে ইমিগ্র্যান্ট সিলেটের এই পরিবার-পরিজনদের সাথে ভ্রমণের মাধ্যমে মেলা-মেশার ক্ষেত্রে বন্ড যে বাধা হয়ে দাঁড়াবে, এই ব্যাপারে বেন হোর বেল বললেন, আমি স্পেসিফিক কোন কিছু মন্তব্য করাটা ঠিক হবেনা। তবে একটা হিন্টস দিলেন এই বলে যে, ইমিগ্র্যাশন আইন প্রতি নিয়ত মনিটর করা হয়, নেগোসিয়েশনের দরজা কখনো বন্ধ করেনি ব্রিটিশ সরকার।

পত্র-পত্রিকায় রিপোর্ট দেখে ব্রিটিশ হাই কমিশন ঢাকা ইতিমধ্যে জানিয়েছেন, হোম অফিস নেট ইমিগ্র্যাশন টার্গেট নিয়ে নানা পদক্ষেপ নিতে যাচ্ছে, তবে এখন পর্যন্ত এই বন্ড নিয়ে বাংলাদেশের ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি।

হোম অফিস সূত্রে জানা গেছে, এই অপশনটি নভেম্বর মাস থেকে পরীক্ষামূলক ভাবে চালুর পরিকল্পণা রয়েছে।

আমাদের করণীয়:-

* বাংলাদেশের ব্যবসায়ীদের সংগঠন এফবিসিসিআই তাৎক্ষণিক ভাবে এ নিয়ে ষ্ট্যাট ম্যান্ট দেয়া উচিৎ ছিলো। এখনি এফবিসিসিআই বাংলাদেশী ও প্রবাসী জনগণের স্বার্থ-সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ব্রিটিশ হাই কমিশনের থ্রোতে উদ্বেগ প্রকাশ করে বিবৃতি দিতে পারে।
* ব্রিটিশ সরকারের সাথে নেগোসিয়েশন করতে পারে। দূতাবাসের থ্রোতে দাবি জানাতে পারে পূণর্বিবেচনার, বিশেষ করে বৃহত্তর সিলেটের ব্যাপক ইমিগ্র্যান্ট জনগণের ও পরিবার-পরিজনদের কথা মাথায় রেখে
* ব্রিটিশ হাই কমিশন ও কমনওয়েলথ অফিসের মাধ্যমে ফরেন অফিসে কনস্ট্যান্ট যোগাযোগ রক্ষা করে উদ্যোগী ভূমিকা নিতে পারে
প্রয়োজনীয় তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করে স্বাক্ষর সম্বলিত দাবি ব্রিটিশ সরকারের হোম অফিসে দিতে পারে-
• বাংলাদেশের জনগণের স্বাক্ষর সম্বলিত আবেদন ব্রিটিশ হাই কমিশন বরাবরে লন্ডন অফিসে জমা দেয়ার ব্যবস্থা করা
• বাংলাদেশ সরকারের পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে ব্রিটিশ সরকারের সাথে লিয়াজো করে এই নীতি পূণর্বিবেচনার আবেদন করতে পারে

প্রবাসীদের করণীয়:-

প্রবাসীদের বিভিন্ন সংগঠনকে একত্রিত হয়ে বা আলাদা আলাদা ভাবে হোম অফিসের সাথে লিয়াজো মেইনটেন করে, বিভিন্ন সংসদীয় আসনের সাংসদদের থ্রোতে, লিবার্টি গ্রুপদের সাথে সমন্বয় সাধন করে, প্রবাসীদের স্বাক্ষর সম্বলিত দাবি-দাওয়া ও এই আইনে বাংলাদেশের প্রতি শীতলতা প্রদর্শনের বা পূণর্বিবেচনার আবেদন জমা দেয়া যেতে পারে।

বেন হোর বেল সলিসিটির্সদের মতে, জনমতের প্রতি ব্রিটিশ সরকার বরাবরই শ্রদ্ধাশীল।কন্টিনিউ লিয়াজো, স্বাক্ষর সম্বলিত আবেদন পূণর্বিবেচনার আহবানে হোম অফিস এতে রিভিউ বা বাংলাদেশ চ্যাপ্টার পূণর্বিবেচনা করতে পারে, যদি আমরা যথাযথভাবে নেগোসিয়েশন করতে পারি উপযুক্ত তথ্য-প্রমাণসহ।
Salim932@googlemail.com
24th June 2013.

Please follow and like us:

Add a Comment

Your email address will not be published.

Follow by Email
YouTube
Pinterest
LinkedIn
Share
Instagram
error: Content is protected !!